করুণা কারফিউ এর সময় জামাত ও জুমা নামাজের হুকুম

করুণা কারফিউ এর সময় জামাত ও জুমা নামাজের হুকুম
যেহেতু সরকারের তরফ থেকে লোকজনের একত্রিত ও দলবদ্ধ হওয়া কে সম্পূর্ণ ভাবে নিষিদ্ধ করা হয়েছে। বহু জায়গায় জামাতে নামাজ পড়ার কারণে পুলিশের পানিশমেন্ট নিতে হয়েছে। সুতরাং প্রথমত চেষ্টা করতে হবে পুলিশের সঙ্গে পরামর্শ করে জামায়াত ও জুমা চালু রাখার। কিন্তু পুলিশের সঙ্গেপরামর্শের পরেও যদি জামাত চালু রাখার বা জুমা কায়েম করার অনুমতি না পাওয়া যায়।
তাহলে, দু তিনজন মানুষ মসজিদে আজান দিয়ে জামাত করবে বাকি সমস্ত ব্যক্তিরা বাড়িতেই নামাজ আদায় করবে জামাতে অংশগ্রহণ করা এক্ষেত্রে জরুরী থাকবেনা।
জুম'আর ক্ষেত্রেও কিছু মানুষ মসজিদে আজান ও খোবা পাঠ করে জুমা কায়েম রাখবে বাকি সমস্ত মানুষ বাড়িতেই জুমার পরিবর্তে জোহরের নামাজ আদায় করবে তবে উল্লেখযোগ্য বিষয় হলো মসজিদে কিছু মানুষের জুমা আদায়-এর পর যেন বাড়িতে যোহরের নামাজ আদায় করে।

যাদের কাশি ও শ্বাসকষ্ট আছে তারা যেন মসজিদে উপস্থিত না হয়।

নিম্নের ফাতওয়া টির সংক্ষিপ্ত সারাংশ আমি উল্লেখ করলাম সেই সমস্ত ব্যক্তিদের জন্য যারা উর্দু পড়তে জানেন না যারা উর্দু পড়তে জানেন তারা ফাতওয়াটি তে যা লেখা আছে তা মানুষকে বোঝানোর চেষ্টা করবেন।
 ইতি
মুফতী আমজাদ হোসেন সিমনানী

*আমাদের সঙ্গে যুক্ত হওয়ার জন্য*
   *এই লিংকে ক্লিক করুন*
👇👇👇👇👇👇👇👇👇
আমাদের You tube চ্যানেল গুলি কে  SUBSCRIBE করুন
আমাদের সঙ্গে যুক্ত হওয়ার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ।

Post a Comment

0 Comments